বিদায় অ্যালেন রিকম্যান

1499

হ্যারি পটার মুভির জনপ্রিয় চরিত্র প্রফেসর স্নেইপখ্যাত অভিনেতা অ্যালেন রিকম্যান পাড়ি জমিয়েছেন না ফেরার দেশে। দীর্ঘদিন ধরে অগ্ন্যাশয় ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করার পর ৬৯ বছর বয়সী এ অভিনয় শিল্পীর গত বৃহস্পতিবার মারা যান।

Safe Internet

অন্তিম মুহূর্তে নিজ গৃহে তার পাশে ছিলেন পরিবার ও বন্ধুরা। ক্যানসার সনাক্ত হওয়ার মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই জীবন প্রদীপ নিভে গেল এ তারকার। জানা যায়, খুব সম্ভবত আগস্টের দিকে মাইল্ড স্ট্রোকের শিকার হন রিকম্যান।

উল্লেখ্য, ১৯৪৬ সালে লন্ডনে জন্ম নেয়া এ তারকার ক্যারিয়ার শুরু থিয়েটারের মধ্য দিয়ে। আর রূপালি পর্দায় পথচলা শুরু ১৯৮৮ সালে 'ডাই হার্ড' মুভির মাধ্যমে। এরপর থেকে গত দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি উপহার দিয়েছেন একের পর এক আলোচিত সিনেমা।

‘রবিন হুড: প্রিন্স অফ থিভস’, ‘ট্রুলি ম্যাডলি ডিপলি’, ‘সেন্স অ্যান্ড সেন্সিবিলিটি’ ইত্যাদি ছবিতে অভিনয় করে জায়গা করে নেন চলচ্চিত্রপ্রেমীদের মনে। তবে তার খ্যাতির মুকুটে সোনার পালক যোগ করা চরিত্রটি হচ্ছে হ্যারি পটার সিরিজের প্রফেসর স্নেইপ।

বৃহস্পতিবার তার মৃত্যুর সংবাদ শোনার সাথে সাথেই তোলপাড় শুরু হয়ে যায় সিনেমাজগত ও ভক্তদের মাঝে। প্রতিবেশীরাও তার এই আকস্মিক মৃত্যুতে হতভম্ব। কেননা তাদের মতে মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগেও হাসিমুখে বেশ ভালই দেখা গিয়েছিল অ্যালান রিকম্যানকে। তার মৃত্যুর পর ভক্ত, সহযোগী ও সিনেমাবোদ্ধাদের একের পর এক টুইটে শোকের সাগরে ভাসতে থাকে টুইটার।

টিভি তারকা স্টিফেন ফ্রাই টুইট করেন, 'অ্যালান রিকম্যানের খবরটা খুবই দুঃখজনক। তার মতো একজন প্রতিভাবান এবং পাগলাটে অভিনেতার অনুপস্থিতি সবসময়ই অনুভব করবো।'

হ্যারি পটার লেখিকা জে কে রাওলিং টুইটারে জানান, ‘অ্যালান রিকম্যানের মৃত্যুর খবর শুনে কতটা স্তম্ভিত আর মর্মাহত হয়েছি, তা প্রকাশ করার ভাষা নেই আমার। তিনি ছিলেন অত্যন্ত উঁচু মানের একজন অভিনেতা আর চমৎকার মানুষ।’ রাওলিং তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনাও জানান তার টুইট বার্তায়।

অভিনয় ছাড়াও পরিচালক হিসেবেও কম ছিলেন না তিনি। ‘এ লিটেল ক্যাওস’ ও ‘দ্যা উইন্টার গেস্ট’ নামে দু’টি ছবিও নির্মাণ করেন তিনি।
দীর্ঘ ক্যারিয়ারে খলনায়কের চরিত্রেই বেশি অভিনয় করেছেন রিকম্যান। তার প্রথম সিনেমা ‘ডাই হার্ড’-এ তার চরিত্রটিই ছিল নেগেটিভ। আর খলনায়ক হিসেবে তার শেষ সিনেমা ‘রবিন হুড: প্রিন্স অফ থিভস’।

রিকম্যানের সবশেষ সিনেমা 'অ্যালিস থ্রু দ্য লুকিং গ্লাস' মুক্তি পাবে আগামী ২৭ মে। এছাড়া গত বছর তার টোর্টস কুড সেভ অ্যা লাইভ শিরোনামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমা মুক্তি পেয়েছে। সিনেমাটিতে কণ্ঠ দিয়েছিলেন তিনি।

দুই যুগেরও বেশি ক্যারিয়ার জীবনে গোল্ডেন গ্লোব, এমি, স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড অ্যাওয়ার্ড, বাফটাসহ জিতে নিয়েছেন অনেক পুরস্কার।সম্প্রতি সেরা মিনি সিরিজ অভিনেতা হিসেবে তিনি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার জয় করেন ‘রাস্পুটিন: দ্য ডার্ক সারভেন্ট অফ ডেস্টিনি’র জন্য।