সঙ্গীতের রকমফেরঃ ব্লুজ সঙ্গীত

blues
ছবি : সংগৃহীত

সঙ্গীতের রয়েছে নানা ধরণ, নানা স্বাদ। মানুষের ভিন্ন ভিন্ন পছন্দের কারণে গানের ধরণও বৈচিত্র্যময় হয়। আবার মনের অবস্থার উপরও মানুষের গানের পছন্দ নির্ভর করে। তাই ফোক, রক, মেটাল, পপ, জ্যাজ ইত্যাদি বিভিন্ন ধরণের গানের জন্ম হয়েছে। ভিন্ন রকমের কথা, সুর, তাল, বাদ্যযন্ত্র দিয়ে এসব গানে বৈচিত্র্য আনা হয়েছে। এরকম বিভিন্ন ঘরানার গান সম্পর্কে জানতেই আমাদের এই আয়োজন। আজকে জানবো ব্লুজ নিয়ে।

 

Safe Internet

১৯ শতকের শুরুর দিকে আমেরিকায় শুরু হয় ব্যাপকহারে রাস্তাঘাট, রেলপথ, ভবন নির্মাণের কাজ। আর এসব কাজ করানোর জন্য আফ্রিকা অঞ্চল থেকে ধরে নিয়ে যাওয়া হত নিরীহ কৃষ্ণাঙ্গদের আর তাদের দিয়ে করানো হত দাসত্ব।

সারাদিন অমানুষিক পরিশ্রম করার পর রাতে এসব কৃষ্ণাঙ্গ শ্রমিকেরা গান করতো। আফ্রিকান বাঁশির সুরে গ্লাস, মগ, প্লেটে টুংটাং শব্দ তুলতো তারা যেগুলোতে আঁকা থাকতো ক্রীতদাসের নীল বৃত্ত। আর তাই শ্বেতাঙ্গ আমেরিকানরা এসব দাসদের সঙ্গীতকে ব্যঙ্গ করে বলতো ব্লুজ সঙ্গীত। আফ্রিকানদেরও অনেক সময় তারা ব্লুজ বলে সম্বোধন করতো।

এভাবেই মূলত ব্লুজ গানের উৎপত্তি। আফ্রিকান-আমেরিকান সম্প্রদায় থেকে উদ্ভূত এই ধারার সঙ্গীত আমেরিকার দক্ষিণাঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে ১৯ শতকের শেষের দিকে। মূলত আফ্রিকার ঐতিহ্যবাহী সঙ্গীত থেকে এর উৎপত্তি হলেও এর সাথে ছিল ইউরোপিয়ান আমেরিকান ফোক গানের সংমিশ্রণ।

ব্লুজ সঙ্গীতে কৃষ্ণাঙ্গ শ্রমিকদের মনের কষ্ট, বিষণ্ণতা, আত্মার অতৃপ্তি, কাজের বর্ণনা এসব প্রাধান্য পেত। ধীরে ধীরে ব্লুজ সঙ্গীতে আসে নিজস্ব ধরণ ও বৈশিষ্ট্য। নির্দিষ্ট স্কেল এবং কর্ড প্রগ্রেসন ব্যবহৃত হয়। অন্য যেকোনো ধরণের গান থেকে ব্লুজের পিচ আর ফ্ল্যাট হয়ে থাকে এবং তালও ভিন্নরকমের হয়। এছাড়া ব্লুজ সঙ্গীতে আফ্রিকান গান এবং ধর্মের প্রভাব লক্ষ্য করা যায়।

১৯০৮ সালে প্রথম ব্লুজ গান প্রকাশিত হয়। এরপর থেকে ব্লুজ গানে পরিবর্তন আসতে শুরু করে। কান্ট্রি ব্লুজ, শিকাগো ব্লুজ, ওয়েস্ট কোস্ট ব্লুজসহ আরও বিভিন্ন ব্লুজ গানের ধরণের আবির্ভাব ঘটে। ২য় বিশ্বযুদ্ধের পর ইলেকট্রিক ব্লুজ এবং সত্তরের দশকে রক ব্লুজের উৎপত্তি ঘটে।

ব্লুজ গানের রাজা বলা হয় বি বি কিং’কে। এছাড়াও রয়েছেন বো ডিডলি, এরিকা বাদু, জিমি ভন এবং আরও অনেকে। এরিক ক্ল্যাপটনসহ আরও অনেক ব্যান্ড ব্লুজ রক গেয়ে জনপ্রিয় হয়েছে।

বাংলাদেশে ব্লুজ গানের চর্চা তেমন একটা নেই। তবে জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু দীর্ঘদিন ধরে ব্লুজ মিউজিক নিয়ে কাজ করছেন। এবি ব্লুজ নামে তার একটি ব্লুজ গানের দলও রয়েছে। গত বছর অনুষ্ঠিত ব্লুজ এন্ড জ্যাজ ফেস্টিভালে বাংলাদেশ থেকে তার এই ব্যান্ড, ব্লুজ ব্রাদার্সসহ দেশবিদেশের অনেকগুলো ব্লুজ ব্যান্ড অংশ নেয়।

বিবি কিং’এর জনপ্রিয় একটি ব্লুজ গান শুনতে এখানে ক্লিক করুন।