গোল্ড কোস্টে শ্যুটিংয়ে বাংলাদেশের প্রথম পদক

Abdullah Hel Baki
ছবি : সংগৃহীত

অস্ট্রেলিয়ার গোল্ড কোস্টে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ গেইমসের ২১তম আসরে বাংলাদেশের হয়ে প্রথম পদক জিতলেন বাংলাদেশের আবদুল্লাহ হেল বাকী। ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে রৌপ্য জেতেন এই তারকা। এর আগে গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ গেমসের ২০তম আসরেও রৌপ্য জিতেছিলেন বাংলাদেশের এই তারকা।

১০ মিটার এয়ার রাইফেলের কোয়ালিফাইং রাউন্ডে ৬১৬.০ স্কোর করে ফাইনালে ওঠা বাকী শুরু থেকেই দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ২৪ রাউন্ডের খেলায় বেশ কয়েকবার শীর্ষে উঠে আসেন এই শ্যুটার।

Safe Internet

১৬তম রাউন্ডে থেকে স্বর্ণের জন্য তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয় অস্ট্রেলিয়ার স্যাম্পসন, ভারতের রাভি কুমার আর আবদুল্লাহ হেল বাকীর মধ্যে। তবে ২১তম রাউন্ড শেষে ২০৪.৬ পয়েন্ট নিয়ে ব্রোঞ্জ নিশ্চিত করে ছিটকে যান ভারতের কুমার।

শেষ রাউন্ডে স্যাম্পসনের বাজে শটে বাকির সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়। স্বর্ণ জয়ের জন্য ১০.১ স্কেরের প্রয়োজন হলেও ৯.৭ স্কোর করতে সমর্থ হন বাকী। ফলে ২৪৫ স্কোর নিয়ে স্বর্ণ জেতেন অস্ট্রেলিয়ার স্যাম্পসন। আর ২৪৪.৭ স্কোর নিয়ে ২০১৪ কমনওয়েলথ গেমসের মতো এবারও রৌপ্য জিতেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় বাকীকে।

উল্লেখ্য, কমনওয়েলথ গেইমসে শ্যুটিং বরাবরই বাংলাদেশের প্রত্যাশার ডিসিপ্লিন। দেশটির আগের সব সাফল্যই এসেছে শ্যুটারদের হাত ধরে। ১৯৯০ অকল্যান্ড কমনওয়েলথ গেইমসে স্বর্ণ পদক জয় করেন আতিকুর রহমান ও আবদুস সাত্তার নিনি জুটি। ২০০২ সালে ম্যানচেস্টার কমনওয়েলথ গেইমসে স্বর্ণ পদক আসে আসিফ হোসেন খানের হাত ধরে। এছাড়া ২০০৬ সালে মেলবোর্ন কমনওয়েলথ গেইমসে বাংলাদেশের শ্যুটাররা জেতেন রৌপ্য পদক। ২০১০ সালে দিল্লিতেও দলগতভাবে ব্রোঞ্জ উপহার দেন তারা। ২০১৪ সালের পর ২০১৮ সালেও রৌপ্য পদক আসলো বাকীর হাতে।