উজ্জ্বল ত্বক পান গ্রীষ্মকালেও : পর্ব ৩

489
summer skin care
ছবি: সংগৃহীত

গ্রীষ্মকাল সম্পূর্ণরূপে চলে এসেছে। এখন বাহারি পোশাক পরে ঘুরে বেড়ানোর এবং মৌসুমী ফল উপভোগ করার উপযুক্ত সময়। কিন্তু গ্রীষ্মে সূর্যের তাপে ও গরম বাতাসে হতে পারে ত্বকের তীব্র ক্ষতি। ক্ষতিকর আবহাওয়া ত্বকের উপর খারাপ প্রভাব ফেলে যা ত্বককে নিস্তেজ এবং রুক্ষ করে তোলে। এই ক্ষতিকর আবহাওয়া শুধু ত্বককে তামাটে করে দেয় না বরং ময়লা ও ধুলিকণা দ্বারা অত্যধিক ঘামের কারণে লোমকূপের ছিদ্রগুলোকে বন্ধ করতে পারে। তাই এ সময়ে দরকার বিশেষ যত্ন।

পর্ব ২ এ আমরা জেনেছিলাম কীভাবে সানস্ক্রিণ, এক্সফলিয়েট এবং পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার মাধ্যমে ত্বকের যত্ন নেয়া হয়। চলুন আজ আরও কিছু উপায় জেনে নেই।

Safe Internet

ময়েশ্চারাইজ
আবহাওয়া যেমনই হোক না কেনো, মুখ এবং শরীরের যত্ন সব সময়ই করা চাই। আর সেইজন্য ময়েশ্চারাইজিং এর বিকল্প নেই। তবে তেলভিত্তিক ময়েশ্চারাইজার এড়িয়ে চলা ভালো। নরম ও মসৃণ ত্বক পেতে জলভিত্তিক ময়শ্চারাইজার ত্বকে লাগিয়ে কিছুক্ষণ ম্যাসেজ করতে হবে। ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করার সবচাইতে ভালো সময় হচ্ছে গোসলের পর, কারণ এসময় ত্বক কিছুটা ভেজা থাকে এবং লোমকূপগুলোও পরিস্কার থাকে। তবে রাতে ঘুমাতে যাবার আগে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করাও ভালো, কারণ এটি ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় এবং ঘুমের সময় ত্বককে রক্ষা করে।

স্টিমিং
ক্ষতিকর আবহাওয়া দ্বারা ময়লা ও ধূলিকণা আমাদের লোমকূপের ছিদ্রগুলো বন্ধ করে দেয়। যার ফলে ত্বকে ব্রণ ও ব্ল্যাকহেডস হয়ে থাকে। স্টিম থেরাপি লোমকূপের ছিদ্রগুলোকে খুলে দিতে সাহায্য করে, যার ফলে জমাট বাধা ময়লাগুলোকে সহজে পরিস্কার করে এবং ত্বককে নরম করে। সপ্তাহে অন্তত একবার স্টিম থেরাপি করা উচিত।

টোনিং
টোনার ত্বকের ময়লা পরিস্কার করে, পিএইচ স্তরের ভারসাম্য বজায় রেখে ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে তুলতে সাহায্য করে। আপনি সমপরিমাণ গ্লিসারিন ও গোলাপ জল দ্বারা একটি প্রাকৃতিক টোনার নিজেই তৈরি করতে পারেন। প্রতি রাতে এই টোনার প্রয়োগ করলে ব্রণ, ব্ল্যাকহেডস এবং অন্যান্য দাগ ত্বক হতে হ্রাস পাবে।

তামাটে ভাব
ত্বকের তামাটে ভাব কমাতে ঘরে বসেই তৈরি করে নিতে পারেন ফেইসমাস্ক। দুই থেকে তিনটি বাদাম, ১ চা চামচ লেবুর রস ও ২ চা চামচ দুধ মিশিয়ে একটি মাস্ক তৈরি করতে পারেন। এই মাস্কটি রাতে ঘুমাতে যাবার আগে লাগিয়ে সারারাতের জন্য ছেড়ে দিন এবং সকালে কুসুম গরম পানি দিয়ে পরিস্কার করে ফেলুন। এটি যে শুধু ত্বকের তামাটে ভাব দূর করে তা না বরং এটি আপনাকে দিতে পারে একটি সুস্থ ও উজ্জ্বল ত্বক।

অথবা সমপরিমাণ মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে তা ত্বকে লাগিয়ে ছেড়ে দিন ২০ মিনিটের জন্য। এটি ত্বকের তামাটে ভাব অপসারণের জন্য সবচেয়ে সহজ এবং কার্যকরী প্রতিকার। এছাড়াও আপনি ত্বকে শশার রস প্রয়োগ করতে পারেন, কারণ এটি প্রবল সূর্যের রশ্মির প্রভাব কমাতে সাহায্য করে।

১ চা চামচ ময়দা, ১ চা চামচ দুধ ও কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ব্যবহার করে একটি পেস্ট তৈরি করা যেতে পারে। সব উপাদান একসাথে মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে ৩০ মিনিটের জন্য ত্বকে লাগিয়ে রাখতে হবে। এটিও ত্বককে উজ্জ্বল করে তুলতে সহয়তা করে।