শুরু হলো ডিআরএমসি আর্ট অ্যান্ড ফটো ফেস্ট

1419
picture1_1



স্কুল এবং কলেজ শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সৃজনশীল কাজের প্রদর্শনী নিয়ে ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজে আজ থেকে শুরু হয়েছে ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ আর্ট অ্যান্ড ফটো ফেস্ট ২০১৫। সকাল ১০টায় দ্বিতীয়বারের মতাে আয়োজিত এই ফেস্টের উদ্বোধন করেন কলেজের অধ্যক্ষ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আসাদুজ্জামান সুবহানি এবং নেসার আহমেদ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আসাদুজ্জামান সুবহানির স্ত্রী ড. ফেরদৌস আরা। 

তিনদিনব্যাপি আয়োজিত এই ফেস্টে ঢাকার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অংশ নিয়েছে। তারা আর্ট, ক্র্যাফট, ফটোগ্রাফি, স্ক্র্যাফটবুক, কুইজ, শর্টফিল্ম এবং দেয়াল প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে।

ইউনিভার্সিটি, হায়ার সেকেন্ডারী, সেকেন্ডারী এবং জুনিয়র সেকেন্ডারী এই চার পর্বে ভাগ করা হয়েছে এবারের ফেস্টে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের। উদ্বোধনী দিন শুরু হয়েছে দেয়াল পত্রিকা, ক্র্যাফট, ফটো কনটেস্ট এবং ফটোগ্রাফি ও কার্টুন সেমিনারের মধ্য দিয়ে। সেমিনারে অংশ নেন শিল্পী ওয়াকিলুর রহমান এবং সাংবাদিক ও কার্টুনিস্ট সাদাত হোসেন। একই সঙ্গে শিক্ষার্থীরা অংশ নেয় একটি উন্মুক্ত চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায়। 



ফেস্টে অংশ অংশ নেয়া ফাউন্ডেশন স্কুলের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হুমায়রা আরজু এবং রাজউক মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী অবনি তিলোত্তমা কাব্য জানান, ফেস্টে অংশ নিতে পেরে অনেক খুশি তারা। তারা চায় এরকম আয়োজন যেন আরো বেশি বেশি হয়। ধানমন্ডি গভঃ বয়েজ স্কুলের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী এস. এম. রাকিব চৌধুরি বলে, অবরোধের কারণে আসতে একটু ভয় ভয় লাগছিলো। তবে রাস্তা কিছুটা ফাঁকা থাকায় সহজেই আসতে পেরে ভালো লাগছে। তারও প্রত্যাশা এরকম আয়োজন নিয়মিত হওয়ার। মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী স্নিগ্ধা ইসলাম মন দিয়ে ছবি আঁকছিলো। তিনি জানালেন অবরোধের কারণে প্রথমে তার বাবা-মা অংশ নিতে নিষেধ করলেও শেষ পর্যন্ত অংশ নিতে পেরেছে সে।

প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া একজন শিক্ষার্থীর মা শাহানারা বেগম জানান, প্রথমে রাজি হইনি এখানে আসতে দিতে। পরে মেয়ের আগ্রহের কাছে হার মেনে নিয়ে এসেছি তাকে। 

ফেস্টের আয়োজক কলেজের আর্ট অ্যান্ড ক্র্যাফট বিভাগের প্রধান এবং সহকারী অধ্যাপক মির্জা তানবিরা সুলতানা নিপা জানান, অবরোধের কারণে এবারের ফেস্টে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ আগেরবারের চেয়ে কিছুটা কম। কী উদ্দেশ্যে এমন ফেস্টের আয়োজন এমন প্রশ্নে তিনি চ্যাম্পস টুয়েন্টিওয়ানকে বলেন, বিশ্বব্যাপী চলমান চিত্রকলা সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের ধারনা দিতেই আমাদের এই আয়োজন। তারা যাতে আধুনিক চিত্রকলার পাশাপাশি বিভিন্ন সৃজনশীল কাজে আরো বেশি সম্পৃক্ত হয় সে লক্ষেই আমাদের এই ফেস্ট আয়োজন করা। 

তিনদিনব্যাপি এই ফেস্ট শেষ হচ্ছে আগামী ৩০ জানুয়ারি। সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমিন্ত্রী সংসদ সদস্য নসরুল হামিদ। কলেজের আর্ট অ্যান্ড ক্র্যাফট বিভাগের আয়োজনে আয়োজিত এই ফেস্টের মিডিয়া পার্টনার চ্যাম্পস টোয়েন্টি ওয়ান ডটকম।