সুপারহিরোদের শেষ যুদ্ধ!

marvel-exclusive-posters-avengers-endgame

অ্যাভেঞ্জার্স সিরিজটি এখন বিশ্ব চলচ্চিত্রপ্রেমীদের কাছে আকর্ষণীয় এক নাম। বিশেষ করে গত বছর এপ্রিলে মুক্তি পাওয়া ‘অ্যাভেঞ্জার্স : ইনফিনিটি ওয়ার’ ছবির পর ‘অ্যাভেঞ্জার্স এন্ড গেম’ নিয়ে দর্শকদের আগ্রহ বেড়েছে বহুগুণে। ‘ইনফিনিটি ওয়ার’ ছবিতে থ্যানসকে পুরোপুরি হারানো সম্ভব হয়নি। ফলে শেষ যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে হয় ক্যাপ্টেন আমেরিকা, আয়রন ম্যান, থর, হাল্ক্ক, ব্ল্যাক উইডো, নিক ফিউরি, ডক্টর স্ট্রেঞ্জদের। ইনফিনিটি ওয়ারে সমাধান না হওয়া রহস্যের জট খুলবে এবারের ছবিতে।

কিন্তু প্রশ্ন হলো নতুন পর্বে কোন কোন সুপারহিরো থাকবেন? কারণ ইনফিনিটি ওয়ার ছবির শেষে অনেক সুপারহিরোকেই দেখা গেছে ছাই হয়ে উড়ে যেতে। সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে মারভেল স্টুডিও কিছুদিন আগে প্রকাশ করে ছবির অফিসিয়াল পোস্টার। সেখান থেকে অনুমান করাই যায় কারা থাকছেন ‘অ্যাভেঞ্জার্স :এন্ড গেম’-এ। আর মারভেল স্টুডিও যেহেতু চমক দিতে ভালোবাসে। ফলে এই ছবিতে আরও অনেক চমক থাকতে পারে, যা পোস্টারে প্রকাশ করেনি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি।

ClassTune

‘অ্যাভেঞ্জার্স :এন্ড গেম’-এ থাকছেন আয়রন ম্যান বা টনি স্টার্ক [রবার্ট ডাওনি জুনিয়র], থর [ক্রিস হেমসওয়ার্থ], হাল্ক্ক বা ব্রুস বানার [মার্ক রাফালো]। এ বছরের মুক্তি পাওয়া ক্যাপ্টেন মারভেল যুক্ত হয়েছেন নতুন এই পর্বে। ক্যাপ্টেন মারভেল বা ক্যারল ডেনভার্সকে [ব্রি লার্সন] অ্যাভেঞ্জার্সদের সঙ্গে দেখা যাবে প্রথমবার। মারভেলের সুপারহিরোদের মধ্যে তুমুল জনপ্রিয় ব্ল্যাক প্যানথার। ‘ইনফিনিটি ওয়ার’ ছবিতে ব্ল্যাক প্যানথার মিলিয়ে গেছেন হাওয়ায়। তাই এন্ড গেম ছবিতে নেই ব্ল্যাক প্যানথার। তবে স্থান পেয়েছে ব্ল্যাক প্যানথারের সেনাপতি ‘ওকোয়োই’ [ডানাই গুরিরা]।

ক্যাপ্টেন আমেরিকা বা স্টিভ রজার্স [ক্রিস ইভান্স] তো থাকছেনই। আরও আছেন ব্ল্যাক ইউডো বা নাতাশা রোম্যানফ [স্কারলেট জনসন], ওয়ার মেশিন বা জেমস রডিস [ডন চিডেল], অ্যান্ট ম্যান বা স্কট ল্যাং [পল রুড], নেবুলা [ক্যারেন গিলান], হাওকি বা ক্লাইন্ট বার্টন [জার্মি রেনার] এবং দেখা যাবে রকেট র‌্যাকন নামের সেই ইঁদুরকে। এই চরিত্রের জন্য কণ্ঠ দেন ব্র্যাডলি কুপার। আর যার হাত থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করতে সব অ্যাভেঞ্জার্স এক হয়েছেন তিনি হলেন থানোস। তিনি তো থাকবেনই।

সুপারহিরোভিত্তিক ফ্র্যাঞ্চাইজি ‘অ্যাভেঞ্জার্স’ সিরিজের সর্বশেষ সিনেমা ‘অ্যাভেঞ্জার্স : এন্ড গেম’। দৈর্ঘ্যের দিক দিয়ে এটি মার্ভেলের সবচেয়ে দীর্ঘ সিনেমা। এর ব্যাপ্তি ৩ ঘণ্টা ৫৮ সেকেন্ড। এদিকে মুক্তির আগেই টিকিট বিক্রিতে ইতিহাস তৈরি করেছে ‘অ্যাভেঞ্জার্স : এন্ড গেম’। সিনেমাটি নিয়ে দর্শকদের মধ্যে তুমুল আগ্রহ দেখে বিশ্নেষকরা বলছেন, ‘অ্যাভেঞ্জার্স : অ্যান্ড গেম’ অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে দিতে পারে। বিগত কয়েক বছর ধরে মার্ভেল স্টুডিও প্রতিটি ছবির হাত ধরে ইউনিভার্স একটা গল্প বলার চেষ্টা করে চলেছে। বলাবাহুল্য, মূল গল্প তার অসংখ্য অনুগল্পের সূত্র ধরেই গড়ে উঠছিল এতদিন। ‘আয়রন ম্যান’-এর পথ ধরে সংঘবব্ধ হয়েছেন সব সুপারহিরো। এখন দুর্যোগের সময়। যুদ্ধের সময়। পাথুরে মুখো থ্যানোসের আগমন ঘটেছে, যার শক্তিমত্তা নিয়ে কোনো রকম আন্দাজই নেই সুপারহিরোদের। তাহলে কী হবে? শেষ হয়ে যাবেন সব সুপারহিরো? আর দেখতে পাওয়া যাবে না অ্যাভেঞ্জারদের? এখানেই শেষ, নাকি শুরু- সব উত্তর পাওয়া যাবে আগামীকাল।

লেখাটি দৈনিক সমকাল থেকে সংগৃহীত