৪৬ বছরে সেসামি স্ট্রীট

৪৬তম বছরে পা দিল পৃথিবী জুড়ে বিখ্যাত শিশুতোষ অনুষ্ঠান সেসামি স্ট্রীট । আজ থেকে ৪৬ বছর আগে ১৯৬৯ সালের ১০ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের নেট(National Educational Television network) চ্যানেলে প্রচারিত হয়েছিল এই জনপ্রিয় সিরিজের প্রথম পর্ব। পরবর্তীতে প্রচারিত হয়েছে পিবিএস-এ এবং বর্তমানে তা এইচবিও চ্যানেলেরও দখলে।

ClassTune

শিশুদের স্কুলে যাবার আগেই স্কুলের উপযোগী করে গড়ে তুলতে জোয়ান গাঞ্জকুনি, জন স্টোন, ডেভ কনেল, স্যাম হিবন, গেরাল্ড এস লেসার ও জিম হ্যান্সন তৈরি করেন একটি শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান। সহযোগিতায় ছিল কার্নেগী কর্পোরেশন সহ আরো কিছু প্রতিষ্ঠান।

প্রথমে অনুষ্ঠানটির জন্য বাছাই করা হয়েছিল ‘প্রেসকল এডুকেশনাল টেলিভিশন শো’ এর মত একটি কাঠখোট্টা নাম। পরবর্তীতে আলি বাবা ও চল্লিশ চোর গল্পের গুহার দরজা খোলার সেই গুপ্ত শব্দ সিসিম ফাঁক অর্থাৎ ‘ওপেন সেসামি ’ থেকেই আসলো পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে চলা অনুষ্ঠানের নাম ‘সেসামি স্ট্রীট’। এখন পর্যন্ত এই বিখ্যাত শো এরপ্রচারিত হয়েছে ৪৩৫২ টি পর্ব।

বর্তমানে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে সেসামি স্ট্রীট। ২০০৯ সালে ৪০ ত জন্মদিনের মধ্যেই তার সম্প্রচার শুরু হয়ে গিয়েছিল ১২০টিরও বেশি দেশে। এর মাঝে প্রায় ২০ টির মত দেশে তা প্রচারিত হচ্ছে নিজস্ব সংস্করণে।

ইজিপ্টে আলাম সিমসিম নামে, ইন্দোনেশিয়ায় জালান সিসেমা, জর্ডানে হিকায়াত সিমসিম, ইন্ডিয়ায় গালিগালি সিমসিম, সাউথ আফ্রিকায় টাকালানি সেসামিসহ বিভিন্ন দেশে প্রচারিত হচ্ছে বিভিন্ন নামে। বাংলাদেশে এসে সেসামি স্ট্রীট নাম বদলে হয়ে গেছে সিসিমপুর।
২০০৫ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত হয় সিসিমপুরের প্রথম পর্ব।

নানান মজার আর অদ্ভুত মাপেটে ভরা সেসামি স্ট্রীটের রঙিন দুনিয়া। হুটস দ্যা আউল নামের পেঁচা হোক বা কুকি মনস্টার নামের নিরীহ দানব-এরকম উদ্ভট নামের চরিত্রের অভাব নেই সিরিজটিতে। শোতে উপস্থিত হওয়া প্রথম মাপেট ছিল বিগ বার্ড নামের আট ফুট লম্বা একটি হলুদ পাখি।

তাছাড়া অ্যাবি ক্যাডাবি, বার্ট, এলমো, কাউন্ট ভন কাউন্ট, স্টিংকি, অস্কার দ্যা গ্রাউচ, বিউটিফুল ডে মনস্টার এমনি অনেক চরিত্র প্রতিনিয়তই বাড়িয়ে চলেছে এই অনুষ্ঠানটির আকর্ষণের মাত্রা। আর মানব চরিত্রেও আছে চারজন আর্টিস্ট।

এছাড়া জেমস আর্ল জোন্স, স্টিভ ওয়ান্ডার, কফি আনানের মত দুই শতাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তিকে এ পর্যন্ত এই অনুষ্ঠানে আনা হয়েছে অতিথি চরিত্রে।

এখন পর্যন্ত পৃথিবীর সবচেয়ে সফল টিভি অনুষ্ঠান এই সেসামি স্ট্রীট। অনুষ্ঠানটি জিতে নিয়েছে দেড়শোরও বেশি পুরস্কার। এর মধ্যে গ্র্যামি জিতেছে ৮টি আর অ্যামি জিতেছে ১৫৯ টি। উল্লেখ্য অ্যামি হল ছোট পর্দার সবচেয়ে বড় পুরস্কার।

আর তাই এত জনপ্রিয় এরকম এক অনুষ্ঠানের জন্য কোন বিশেষ দিন থাকাটাও খুবই স্বাভাবিক নিশ্চয়ই। হয়েছেও ঠিক তাই। সেসামি স্ট্রীটের জন্মদিনকেই বেছে নেওয়া হয়েছে সেই বিশেষ দিন পালনের জন্য।

মাইকেল ব্লুমবার্গ সেসেমি স্ট্রীটের ৪০ তম অ্যানিভার্সারিতে এসে অর্থাৎ ২০০৯ সালে নভেম্বরের ১০ তারিখকে ঘোষণা করেন ‘সেসামি ষ্ট্রীট ডে’ হিসেবে। তবে বলাই বাহুল্য যে সেসামি স্ট্রীট ডে হিসেবে যেদিনকেই ঘোষণা করা হক না কেন শিশুদের জীবনে প্রতিটি দিনই সেসামি স্ট্রীট ডে।