Gravity Defying Water

Gravity Defying Water

বিজ্ঞান নিয়ে অনেকের মনেই ভয়ভীতি থাকে। জটিল সব সূত্র, গাণিতিক ব্যাখ্যা আর কাঠখোট্টা সব শব্দ শুনলেই কেমন যেন ভয় ভয় লাগে। জটিল সব ঘটনাকে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দিয়ে সহজভাবে তুলে ধরার কাজটিই করছে সায়েন্স রকস টিভি অনুষ্ঠানটি। প্রতি সপ্তাহে ২টি করে ৫২ সপ্তাহে মোট ১০৪টি মজার মজার সায়েন্স এক্সপেরিমেন্ট দেখানো হবে তোমাদের আর বলে দেয়া হবে সেটা কেন হলো, কিভাবে হলো। আজ এক ঝলক জেনে নেয়া যাক সায়েন্স রকস টিভি অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে দেখানো ‘Gravity Defying Water’ পরীক্ষাটি।

Gravity বা মাধ্যাকর্ষণ শক্তি। এর নাম আমরা প্রায় সবাই শুনেছি ও অনুভব করতে পারি। পৃথিবী প্রতিটি মুহূর্তে আমাদের আকর্ষণ করছে। ধরো তোমার হাতে একটা গ্লাস আছে; তুমি ছেড়ে দিলা। কি ঘটবে!! গ্লাসটি মাটিতে পড়ে ভেঙে যাবে। কোন কিছু ফেলে দিলে নিচের দিকে পড়ে এটা মূলত Gravity বা মাধ্যাকর্ষণ শক্তি এর মূল কারণ। এই Gravity বা মাধ্যাকর্ষণ শক্তি ধারণার আবিষ্কারক বিজ্ঞানী স্যার আইজ্যাক নিউটন।

পানি যার ধর্মই হচ্ছে নিচের দিকে প্রবাহিত হওয়া বা ধাবিত হওয়া। কিন্তু আমরা এখানে পরীক্ষায় দেখাবো পানি উপরে উঠছে অর্থাৎ পানি মাধ্যাকর্ষণ শক্তি অতিক্রম করে উপরের দিকে উঠছে। ভাবছো কিভাবে!!

কি কি লাগবেঃ
ছোট্ট একটা পরীক্ষার মাধ্যমে আমরা দেখে নিতে পারি কিভাবে।এর জন্য দরকার কিছু উপকরণ যেমনঃ গ্লাস, খাবার প্লে্ট, পানিপূর্ণ বোতল, লাল বা নীল খাবার রঙ, গ্যাসলাইট ও মোমবাতি।

কিভাবে করবোঃ
প্রথমে মোমবাতিটিকে দুইভাগ করি যাতে গ্লাসের ভেতরেই মোমটা জ্বালানো যায়। খাবার রঙ দিয়ে বোতলের পানিটাকে রঙিন করে নেই ও এরপর পানি প্লেটের উপর ঢালি। এবার, গ্যাসলাইট দিয়ে মোমটিকে জ্বালাই। এছাড়া, গ্যাসলাইট দিয়ে মোমের নিচের অংশ হালকা গলিয়ে নিই যাতে প্লেটের উপর বসানো যায়। এবার গ্লাস দিয়ে উপড় করে মোমকে ঢেকে প্লেটের উপর বসায়। এবার লক্ষ্য করে দেখি কি ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে!  মোমটি আস্তে আস্তে নিভে যাচ্ছে ও সাথে সাথে গ্লাসের ভেতরে পানির উচ্চতা বাড়ছে। যেহেতু গ্লাসের ভিতরে পানির উচ্চতা বাড়ছে অন্যদিকে গ্লাসের বাইরে প্লেটের পানির উচ্চতাও কমে যাচ্ছে। ভাবছো পানি কিভাবে গ্লাসের ভিতরে মহাকর্ষ বলের বিরুদ্ধে কাজ করলো?

কেন হলোঃ
আগুন জ্বলা একটি দহন বিক্রিয়া যাতে দরকার তাপ ও অক্সিজেন। মোমটি যখন জ্বলে তখন বাতাসে বিদ্যমান অক্সিজেন ব্যবহার করে। যখন গ্লাস দিয়ে মোমটি ঢেকে ফেলা হয় তখন পরিবেশের বাতাস থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কেবল গ্লাসের ভিতরের কিছু অক্সিজেন আগুন জ্বলতে সাহায্য করে। পরবর্তীতে অক্সিজেন যখন শেষ হয়ে যায় তখন মোম নিভে যায়। ফলে গ্লাসের ভিতরে Vacuum বা শূন্যস্থানের সৃষ্টি হয় এবং গ্লাসের ভেতরের ও বাইরের বায়ুর চাপের পার্থক্য সৃষ্টি হয়। আর এর সমতা করার জন্য প্লেটের কিছু পানি গ্লাসের ভিতরে যায় ও পানি মহাকর্ষ বলের বিরুদ্ধে কাজ করে উপরে উঠেছে।