Fire Water Balloon

2414
Fire Water Balloon

বিজ্ঞান নিয়ে অনেকের মনেই ভয়ভীতি থাকে। জটিল সব সূত্র, গাণিতিক ব্যাখ্যা আর কাঠখোট্টা সব শব্দ শুনলেই কেমন যেন ভয় ভয় লাগে। জটিল সব ঘটনাকে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দিয়ে সহজভাবে তুলে ধরার কাজটিই করছে সায়েন্স রকস টিভি অনুষ্ঠানটি। প্রতি সপ্তাহে ২টি করে ৫২ সপ্তাহে মোট ১০৪টি মজার মজার সায়েন্স এক্সপেরিমেন্ট দেখানো হবে তোমাদের আর বলে দেয়া হবে সেটা কেন হলো, কিভাবে হলো। আজ এক ঝলক জেনে নেয়া যাক সায়েন্স রকস টিভি অনুষ্ঠানের অষ্টম পর্বে দেখানো ‘Fire water balloon’ পরীক্ষাটি।

বেলুন আমাদের খুবই পরিচিত একটি জিনিস। বাচ্চারা অনেক খেলাধুলা করে থাকে বেলুন নিয়ে। আবার বিশেষ কোন অনুষ্ঠানে ঘর সাজাতে ব্যবহার করা হয় বেলুন। আজ আমরা এখানে আমাদের এক্সপেরিমেন্টের জন্য বেলুন ব্যবহার করবো। তবে বেলুন ব্যবহারে আমাদের একটু সতর্ক থাকতে হবে। ধারালো কিছু বা আগুনের কাছে নিলে তা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। কিন্তু আজ আমরা এখানে দেখাচ্ছি বেলুনকে কিভাবে আগুনের উপর রাখা যায়।

ClassTune

যা যা লাগবেঃ
এ পরীক্ষার আমাদের কোন পরীক্ষাগারে যাওয়ার দরকার নেই। ঘরে বসে সহজেই আমরা এক্সপেরিমেন্টটি করতে পারি। আমাদের দরকার দুটো বেলুন, একটি মোমবাতি, একটি গ্যাস লাইটার আর কিছু পানি। এক্ষেত্রে আমাদের যেহেতু আগুন নিয়ে কাজ করতে হবে তাই অবশ্যই সাবধান থাকতে হবে। আর বড় কেউ সাথে থাকলে আরো ভালো হয়।

যেভাবে করবোঃ
প্রথমে একটি বেলুন ফু দিয়ে ফুলিয়ে নেই।পরের বেলুনে না ফুলানো অবস্থায় যতটুকু সম্ভব পানি দিয়ে পূর্ণ করে নিব। পানিপূর্ণ বেলুনটাও এবার ফুলিয়ে নিব। এমনভাবে ফুলাব যাতে না ফেটে যায়। দেখা যাবে বেলুনের আয়তন বেড়ে যাওয়ায় পানি বেলুনের তলায় পড়ে থাকবে। এবার শক্ত করে বেলুনের মুখ গিট দিয়ে বন্ধ করে নিব। মোমবাতিটাকে টেবিলের উপর বসিয়ে গ্যাস লাইটার দিয়ে জ্বালিয়ে নিই। এবার শুরু হবে আমাদের এক্সপেরিমেন্ট। প্রথমেই পানিশূন্য ফুলানো বেলুনটি জলন্ত মোমবাতির ঠিক উপরে যত উঁচুতে সম্ভব ধরি। এবার আস্তে আস্তে বেলুনটিকে মোমবাতি বরাবর নামাত থাকি। কি ঘটতে যাচ্ছে আমাদের সবার জানা; আগুন স্পর্শ করার আগেই বিকট শব্দে বেলুনটি ফুটবে। এবার শুরু হবে আসল কাজ। পানিভর্তি বেলুনটি ও আমারা একই ভাবে মোমের উপর ধরবো। ঠিক আগের নিয়মে বেলুনটি ধরে মোমবাতি বরাবর নিচের দিকে নামাতে থাকব। সবার ধারনা এবারও বেলুনটি আগের বারের মতো ফুটে যাবে। কিন্তু না, আমরা বেলুনটি নামাতে নামাতে মোমবাতির আগুনে স্পর্শ করে কিছুক্ষণ রাখলেও বেলুনের কোন ক্ষতি হচ্ছে না। বেলুনের নিচে হয়তো আগুনের কালি দেখা যাবে তারপরও বেলুনটি ফুটলো না। এবার বেলুনটিকে সরিয়ে পাশ থেকে আগুনের কাছে নিতে চেষ্টা করিঃ; হালকা কাছে নিতেই বেলুন ফুটে সব পানি বেরিয়ে আসবে।

কেন হলোঃ
মোমবাতির আগুন তাপশক্তির উৎস। আর বেলুন হলো রাবারের তৈরী। বেলুনের যে অংশে তাপ দেওয়া হয় তাপে সে অংশের রাবারের অণুর বন্ধন দূর্বল হয়ে যায়। অন্যদিকে বেলুনের ভেতরের বাতাস বেলুনের গায়ে সবদিকে সমানভাবে ক্রমাগত চাপ দিতে থাকে। যখন বেলুনের এই দুর্বল অংশ ভেতরের চাপ ধরে রাখতে পারেনা তখন ঐ অংশে ছিদ্র হয় আর জোরে সব বাতাস বেরিয়ে যায়।

কিন্তু যখন বেলুনের ভেতর পানি থাকে তখন বেলুনের রাবার উত্তপ্ত হতে পারে না। এর ভেতরের পানি এ তাপ শুষে নেয়। কারণ পানি একটি উত্তম তাপ শোষক। ফলে রাবারের বন্ধন দূর্বল হওয়ার মতো তাপশক্তি ওখানে থাকে না। এমনকি পানি তাপ নিতে নিতে ১০০ ডিগ্রি হলেও বেলুনের কোন সমস্যা হবে না। আরো তাপ দিলে তা পানি ফুটতে ব্যবহৃত হবে কিন্ত বেলুন ঠিকই থাকবে। তাই দ্বিতীয় বেলুনটি অক্ষত অবস্থায় থাকে।