বিশ্বের শক্তিশালী পাসপোর্ট

1958
passport

এক দেশ থেকে আরেক দেশে ভ্রমণের প্রধান শর্ত হলো পাসপোর্ট। কারণ একটি দেশের নাগরিক হিসেবে পাসপোর্টের মাধ্যমে স্বীকৃতি পাওয়া যায়। তাই প্রতিটি দেশই তার নাগরিকদের বিদেশের ভ্রমণের জন্য পাসপোর্ট অনুমোদন করে থাকে।

দেশের মতো পাসপোর্টেরও আলাদা মর্যাদা রয়েছে। পাসপোর্টের পাশাপাশি বিদেশ ভ্রমণের জন্য যে দেশে যেতে ইচ্ছুক সেই দেশের ভিসাও লাগে। তবে বিনা ভিসাতেও বিভিন্ন দেশ ভ্রমণের সুযোগ রয়েছে। এক্ষেত্রে কোন দেশ শতাধিক দেশে আবার কোন দেশ মাত্র কয়েকটি দেশে ভিসা ছাড়াই শুধুমাত্র পাসপোর্টের মাধ্যমে ভ্রমণের সুযোগ পায়। এই সুবিধার উপরেই ভিত্তি করে পাসপোর্ট কতোটা ‘শক্তিশালী’।

ClassTune

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী পাসপোর্ট হলো জার্মানীর। কারণ দেশটির নাগরিকরা ভিসা ছাড়াই ১৭৬টি দেশে ভ্রমণের সুযোগ পায়। নাগরিকত্ব ও পরিকল্পনা প্রতিষ্ঠান হেনলি অ্যান্ড পার্টনারস এর ভিসা রেস্ট্রিকশন ইনডেস্কে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়।

বিশ্বের প্রায় ২১৮টি দেশের মধ্যে কোন দেশের পাসপোর্ট কতোটা শক্তিশালী তা ইনডেস্কে প্রকাশ করা হয়েছে। চলুন একনজরে দেখে নিই কোন দেশের পাসপোর্ট কতোটা শক্তিশালী।

১। জার্মানী – ১৭৬টি দেশ
২। সুইডেন – ১৭৫টি দেশ
=৩। ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ইটালি, স্পেন, যুক্তরাষ্ট্র – ১৭৪টি দেশ
=৮। অস্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম, ফ্রান্স, লুক্সেমবার্গ, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, সিঙ্গাপুর, যুক্তরাজ্য – ১৭৩টি দেশ
=১৬। আয়ারল্যান্ড, জাপান, নিউজিল্যান্ড – ১৭২টি দেশ
=১৯। কানাডা, গ্রিস, পর্তুগাল, সুইজারল্যান্ড – ১৭১টি দেশ
=২৩। অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া – ১৭০টি দেশ
=২৫। আইসল্যান্ড – ১৬৯টি দেশ

এই তালিকায় ৯৫ তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ, যা আগের বছরের তুলনায় ১ কমেছে। যদিও ২০০৭ সালে বাংলাদেশের অবস্থান ছিলো মাত্র ৭০। ফলে গত ১০ বছরে বাংলাদেশের পাসপোর্টে ভিসা ছাড়াই ভ্রমণের সুযোগ কমেছে।