স্যানিটাইজার সম্পর্কে যা জানা দরকার

ছবি : সংগৃহীত

করোনাভাইরাসে জর্জরিত গোটা বিশ্ব। রাস্তাঘাট জনমানবশূন্য। ওষুধের দোকানে সচরাচর পাওয়া যাচ্ছে না মাস্ক কিংবা হ্যান্ড স্যানিটাইজার। তবে সৌভাগ্যবশত যারা পাচ্ছেন তাদের জন্য রয়েছে কিছু নিয়মকানুন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে স্যানিটাইজার ব্যবহারের পদ্ধতি নিয়েও নানা নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।

স্যানিটাইজার কেনার আগে
অ্যালকোহলযুক্ত স্যানিটাইজার কিছু জীবাণু মারতে পারে, কিন্তু সব জীবাণু নয়। আদর্শ নিয়ম অনুযায়ী ৬০ থেকে ৯৫ শতাংশ অ্যালকোহল রয়েছে, এমন স্যানিটাইজারই সবচেয়ে ভালো। অ্যালকোহল নেই, এমন স্যানিটাইজার কিন্তু কাজেই লাগবে না কোনও।

স্যানিটাইজারের এক্সপায়ারি ডেট থাকে। ওই মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেলে স্যানিটাইজারের কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়। তাই বাড়িতে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি স্যানিটাইজার রাখাও বিচক্ষণ নয়। বেশি দিন ঘরে রেখে দিলে স্যানিটাইজারের অ্যালকোহলের পরিমাণ কমে যায়।

স্যানিটাইজার কেনার আগে বোতলের গায়ে কম্পোজিশন জেনে নিন। এতে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল ধর্ম থাকতেই হবে।

স্যানিটাইজার দিয়ে অন্তত ২০ সেকেন্ড কচলে কচলে হাত ধুতে হবে। সবচেয়ে ভালো হয় সাবান দিয়ে হাত ধোয়া। কিন্তু সব সমতল ছোঁয়ার পর হাত যদি ধোয়া সম্ভব না হয়, তবে ধুতে হবে স্যানিটাইজার দিয়ে।